1. admin@dailyindependentdialogue.com : admin :
সপ্তাহে এক দিন বউ সাজেন চার সন্তানের জননী - Daily Independent Dialogue
মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১২:২১ অপরাহ্ন
ব্রেকিং নিউজঃ
বড় আমখোলা যুব উন্নয়ন ক্লাবের উদ্যোগে অান্তর্জাতিক কন্যা শিশু দিবস উদযাপন সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় মুহাম্মাদ (সা.)-এর আদর্শ মোনালিসা মুন্নি ছোট পর্দায় প্রতিষ্ঠিত অভিনয় শিল্পী হিসাবে নিজেকে পরিচিত করতে চান। তালতলীর ২৪টি যুব ক্লাবের সদস্যদের সাথে আরডিএফ এর সম্বয়ন সভা অনুষ্ঠিত তালতলী তে ৭ দফা দাবিতে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের তিন হাজারের অধিক শ্রমিকদের বিক্ষোভ, কর্মবিরতি মুজিবের মেয়ে’ র শুভারম্ভ মহিলা সমিতির মঞ্চে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে কিশোরীকে ধর্ষণ, যুবক কারাগারে বাংলাদেশে রাস্তায় আসছে ইলেকট্রিক গাড়ি তালতলীতে পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে আপত্তিকর অবস্থায় আটক, অতঃপর ধর্ষণ মামলা তালতলীতে বিদুৎস্পৃষ্ট হয়ে স্কুল ছাত্রের মৃত্যু।

সপ্তাহে এক দিন বউ সাজেন চার সন্তানের জননী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।
  • Update Time : বুধবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৮৯ Time View

শুক্রবার এলেই তিনি নতুন বউ সাজেন। সপ্তাহের ওই এক দিনই। পাকিস্তানের চার সন্তানের জননীর এই অদ্ভুত শখে হতবাক প্রতিবেশীরা।

প্রত্যেক মানুষেরই কিছু না কিছু শখ থাকে। কেউ সাজতে ভালবাসেন, কেউ গাইতে, কেউ গল্প করতে। কিন্তু প্রতি শুক্রবার নতুন বউ সাজার এমন শখের কথা এর আগে শোনা গেছে বলে মনে হয় না।

৪২ বছর বয়সী হীরা জিশান। পাকিস্তানের পঞ্জাব প্রদেশের এই নারী প্রতি শুক্রবার নববধূর বেশে সাজেন। প্রতিবেশীরাও তার এই আজব শখ নিয়ে নানা রকম আলোচনাও করেন। কিন্তু হীরার এই অদ্ভুত শখের পেছনে এক করুণ কাহিনীও আছে।

প্রায় ১৬ বছর আগে হীরার মা খুব অসুস্থ হয়ে পড়েন। মেয়েকে নিয়ে চিন্তায় ছিলেন মা। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে হয়। হীরার মায়ের খুব ইচ্ছা ছিল মৃত্যুর আগে মেয়েকে নববধূর সাজে দেখে যাবেন।

এরপর, হাসপাতালেরই এক কর্মী হীরার মাকে রক্ত দিয়েছিলেন। মায়ের ইচ্ছে মতো সেই কর্মীকেই বিয়ে করেন হীরা। কিন্তু হাসপাতালে খুব সাধারণ সাজেই বিয়ে হয়েছিল তার। বলতে গেলে এক কাপড়েই। আর চার দশটা বিয়ের মতো ধুমধাম করে নয়। বিয়ের কয়েক দিনের মধ্যেই হীরার মায়ের মৃত্যু হয়। মাকে হারিয়ে একেবারে ভেঙে পড়েছিলেন হীরা।

এখানেই শেষ নয়। এরপর আরও খারাপ পরিস্থিতির মুখোমুখি হন হীরা। পরবর্তী কয়েক বছরে ছয় সন্তানের মধ্যে দুই সন্তানকে হারিয়ে শোকে কাতর হয়ে পড়েন তিনি। অবসাদ ঘিরে ফেলে তাকে। সেই অবসাদ থেকে নিজেকে বের করে আনতে প্রতি শুক্রবার নববধূর বেশে নিজেকে সাজান। হীরার স্বামী লন্ডনে থাকেন।

হীরা জানান, একাকীত্ব থেকে নিজেকে বের করে আনতে, অবসাদ থেকে নিজেকে মুক্ত করতে, নিজেকে আনন্দ দিতেই এই রকম সাজেন তিনি। টানা ১৬ বছর ধরে হীরা এ ভাবেই সেজে আসছেন প্রতি সপ্তাহে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
© All rights reserved © 2021 Dailyindependentdialouge
Theme Customized BY WooHostBD